জামালপুরে চিকিৎসকসহ করোনায় আক্রান্ত তিন জন, ২০ বাড়ি লকডাউন

প্রকাশিত: ৩:৫১ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৯, ২০২০

আল মামুন অটু, জামালপুর থেকে॥ জামালপুরে নতুন করে এক চিকিৎসকসহ তিনজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এই ঘটনায় দুই ব্যক্তির বাড়িসহ আশপাশের ২০টি বাড়ি লকডাউন করেছে প্রশাসন। একই সঙ্গে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টার। রোববার সকালে জামালপুরের ডেপুটি সিভিল সার্জন কে এম শফিকুজ্জামান এসব তথ্য জানিয়েছেন।

আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে একজন ইসলামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা কর্মকর্তা। তাঁর বয়স ২৬ বছর। তিনি জামালপুর জেলা শহরে থাকেন। অপর দুজনের মধ্যে মাদারগঞ্জ উপজেলার একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নারী কর্মী। তাঁর বয়স ২৮ বছর। অন্যজন একই উপজেলার ঢাকা ফেরত এক ব্যক্তি। তাঁর বয়স ৩৮ বছর।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, ওই চিকিৎসক ইসলামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বহির্বিভাগে রোগী দেখতেন। ইসলামপুরেও করোনাভাইরাসের রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ কারণে কয়েক দিন আগে ওই চিকিৎসকের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। একই সঙ্গে ওই নারী ও ঢাকাফেরত ওই ব্যক্তির জ্বর ছিল। পরে গত বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য বিভাগ তাঁদের নমুনাও সংগ্রহ করে। এই তিনজনের নমুনা পরীক্ষার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ল্যাবে পাঠানো হয়েছিল। পরীক্ষায় ওই তিনজনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এ নিয়ে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ২৪ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে।
নতুন করে আক্রান্ত তিন ব্যক্তি মধ্যে দুজনের দুই বাড়ি লকডাউন করেছে প্রশাসন। পাশাপাশি মাদারগঞ্জ উপজেলার চরপারকেরদহ ইউনিয়নের ১০টি ও কড়ইচূড়া ইউনিয়নের ১০টি বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। একই সঙ্গে ওই নারী বালিজুড়ি বাজারের যে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কর্মী ছিলেন, সেটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে জামালপুরের ডেপুটি সিভিল সার্জন কে এম শফিকুজ্জামান বলেন, করোনায় আক্রান্ত মেডিকেল অফিসারকে তাঁর বাসায় আইসোলেশনে থাকতে বলা হয়েছে। বাকি দুজনের মধ্যে ওই নারীকেও তাঁর বাড়িতেই আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। ঢাকাফেরত ওই ব্যক্তিকে গত রাতে জামালপুরের শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজের আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।’
এ বিষয়ে মাদারগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘সারা জেলার মধ্যে এ উপজেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। এ পর্যন্ত ফার্মাসিস্ট, আয়া, উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসারসহ আটজন আক্রান্ত হয়েছেন। গত রাতের নতুন করে দুজনের আক্রান্ত হওয়ার খবর শোনার সঙ্গে সঙ্গে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। নতুন দুজন কাদের সংস্পর্শে গিয়েছেন, তাঁদের খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে।