কোটি কোটি টাকা চাঁদা তুলে শ্রমিকদের কল্যাণে কি করেছেন নেতারা – ইলিয়াস কাঞ্চন

প্রকাশিত: ৩:৪৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৩০, ২০১৯

নয়াদেশ রিপোর্ট।।  পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা তাদের স্বার্থ উদ্ধার করতে নতুন সড়ক আইনের বিষয়ে বিরোধীতা করছেন জানিয়ে ‘নিসচা’ (নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলন) এর চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন শ্রমিক নেতাদের কাছে প্রশ্ন রাখেন প্রতিবছর সড়ক-মহাসড়কে শ্রমিক কল্যাণের নামে উঠানো কোটি কোটি টাকা চাঁদা দিয়ে শ্রমিকদের কল্যাণে কি কাজ করেছেন। শনিবার (৩০ নভেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবে নিসচা’র ২৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ প্রশ্ন করেন।

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, নিসচা আন্দোলনের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল সময়োপযোগী সড়ক পরিবহন আইনের। সেই দাবি আজ পূরণ হয়েছে। কিন্তু দুঃখের কথা, প্রয়োগের শুরুর দিন (১ নভেম্বর) থেকেই আইনটি হোঁচট খেয়েছে। এ আইন যাতে বাস্তবায়ন করা না হয়, সরকার যাতে এ আইন বাস্তাবায়ন করতে না পারে সে জন্যে একটি মহল শ্রমিকদের ব্যাবহার করে সড়কে অহেতুক নৈরাজ্য ও বিশৃঙ্খলায় লিপ্ত। এ সময় তিনি এই আইন বাস্তবায়নে কোনো চাঁপের কাছে নতি স্বীকার করা যাবে না বলেও জানান।

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, আইন প্রয়োগ করে সড়কে চলমান সংকট উত্তরণে নতুন সড়ক পরিবহন আইনের যথাযথ বাস্তবায়নের বিকল্প নেই। পরিবহন সেক্টরে শৃঙ্খলা জোরদার ও দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে সুপারিশ প্রণয়নে গঠিত কমিটি যে ১১১টি সুপারিশ করেছে, তাতে এ আইন বাস্তবায়নের পথ নির্দেশনা রয়েছে। এতে পুরো সড়ক ব্যবস্থাপনা সিসিটিভি ক্যামেরায় আওয়তায় আনার কথা বলা হয়েছে। যাতে কেউ আইন ভঙ্গ না করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থার নেওয়ার শঙ্কা না থাকে। যারা অন্যায় করবে, তাদেরই শাস্তির আওতায় আনতে হবে। পরিবহন মালিক হোক বা শ্রমিক হোক, কারো চাপের মুখে নতি স্বীকার করা যাবে না। আইনের বাস্তবায়ন আটকে রাখা যাবে না। মানুষকে জিম্মি করে, সরকারকে বিব্রত করে যদি কেউ এই আইন বাস্তবায়ন ঠেকানোর চেষ্টা করে, তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ারও জোর দাবি জানান।

তিনি আরও বলেন, তার (ইলিয়াস কাঞ্চন) বিরুদ্ধে নানা বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে। তিনি বলেন, প্রকৃতপক্ষে ইলিয়াস কাঞ্চন কারো পক্ষে বা বিপক্ষে কথা বলেননা। তিনি শুধু অনিয়মের বিরুদ্ধে কথা বলেন। যারাই অনিয়ম করেন, তাদের বিপক্ষে কথা বলেন। কোনো চালক যদি মনে করেন, তিনি (ইলিয়াস কাঞ্চন) তাদের (পরিবহন মালিক-শ্রমিক) বিরুদ্ধে কথা বলেন, সেটা হবে দুঃখজনক।

এ সময় অনুষ্ঠানে নিরাপদ সড়ক বাস্তবায়নে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে চারজনকে সম্মাননা জানানো হয়। সম্মাননাপ্রাপ্তরা হলেন- শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের অধ্যক্ষ নূর নাহার ইয়াসমীন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ, সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) ফয়সল মাহমুদ এবং ডিএমপির তেজগাঁও জোনের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর বিপ্লব ভৌমিক।