আবারও রাস্তায় নামলে কারো পিঠের চামড়া থাকবে না

প্রকাশিত: ৪:৪১ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২১, ২০১৯

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক।।  
সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার জন্য এটাই শেষ সুযোগ জানিয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম শতর্ক করে বলেন, আবারও সড়কে বিশৃঙ্খলার কারণে যদি আমাদের সন্তানেরা রাস্তায় নামে তাহলে কারো পিঠের চামড়া থাকবে না। তা সে আমি পুলিশই হই আর আপনি পরিবহন মালিক সমিতির বড় নেতাই হোন।
বৃহস্পতিবার (২১ নভেম্বর) রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইনসে ট্রাফিক সচেতনতামূলক পক্ষের উদ্বোধন শেষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ হুশিয়ারী উচ্চারণ করেন।
ডিএমপি কমিশনার বলেন, নতুন সড়ক পরিবহন আইনটা করা হয়েছে, সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার জন্য। সরকার ও ট্রাফিক পুলিশের জরিমানা আদায় উদ্দেশ্য না। ঢাকা মহানগরীতে এখন প্রতি মাসে ৬-৭ কোটি টাকা জরিমানা আদায় হয় জানিয়ে তিনি বলেন, সরকারের কাছে এই টাকা একেবারেই নস্যি, সরকারের এই টাকার প্রয়োজন নাই।
এই পুলিশ কমিশনার বলেন, তিনি ডিএমপি’র কমিশনার হিসেবে যোগদানের পর ট্রাফিক সদস্যদের মামলার টার্গেট থেকে বেরিয়ে এসে সকলকে আইন মেনে চলার প্রতি উৎসাহিত করার পরামর্শ দেন।
অপর এ প্রসঙ্গে কমিশনার শফিকুল ইসলাম বলেন, গাড়ি ইঞ্জিন চালিত। যে কোন সময় কোন না কোন কারণে অচল হতেই পারে কিন্তু গাড়ি অচল হওয়ার পর গাড়ি রেখে চালক বা মালিক কোথাও চলে গেছেন, দীর্ঘ সময় খোঁজ করেও তাকে পাওয়া যাচ্ছে না। সেক্ষেত্রে আমি রেকারিং করার কথা বলেছি। এর বাইরে যে গাড়ির কোনো কাগজই নাই, সেসব গাড়ি রেকারিংয়ের প্রয়োজন পড়ে।
বর্তমান নতুন আইনে একটি জরিমানা দিলে পরিবহন মালিক বা শ্রমিকের সারা মাসের উপার্জন চলে যাবে উপলব্দি করে অব্যাহতভাবে যারা আইন অমান্য করবে, পুলিশ শুধু তার বিরুদ্ধে আইন প্রয়োগ করবে। তবে, সেটাও সামান্য। কি অমান্য করেছেন এবং কেন করেছেন বুঝিয়ে দেবেন।
‘কিন্তু এটা একবার-দুইবার বলবো, তৃতীয়বার বলবো না। তখন আপনাকে জরিমানা করবো। আপনি অব্যাহতভাবে আইন অমান্য করবেন আর আমরা আপনাকে ছাড় দিয়ে যাবো, তাহলে তো আর আইনটি কখনই প্রয়োগ সম্ভব না বলেও জানান তিনি।
এ সময় সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে আমাদের সবাইকে এই আইন বাস্তবায়নের মাধ্যমে সকলের নিরাপত্তার জন্য আইন মেনে চলার পাশাপাশি পুলিশকে সহায়তা সকলকে এগিয়ে আসতে বলেন।